মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ঋণ প্রাপ্তি

 

কৃষি ঋণ নেবার নিয়মাবলী
কৃষি ঋণের প্রকারভেদ

কৃষি ঋণ শব্দটি আনেক ব্যাপক। এর মধ্যে রয়েছে আনেকগুলো ভাগ। যেমন- শস্য ঋণ, মত্স্য ঋণ, পোল্ট্রী ও ডেইরী ঋণ। শস্য ঋণ ব্যতীত অন্যগুলো প্রকল্প ভিত্তিক।

শস্য ঋণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত উত্পাদন পরিকল্পনা আছে এবং এখানে ঋণ বিতরণের সীমা নির্ধারিত।
মত্‍স্য ঋণ :  মত্‍স্য ঋণ হয়ে থাকে পারিবারিকভাবে/ পুকুরের পরিমান অনুযায়ী। এখানে উল্লেখ্য যে, পুকুর পুনঃনন প্রকল্পতেও ঋণ দেওয়া হয়। কার্প জাতীয় মাছ যেমন -কাতলা, রুই এছাড়া চিংড়ি ঘেড় অনুযায়ী সবোর্চ্চ ঋণের সীমা হতে পারে ২ কোটি টাকা পযর্ন্ত। এবং সর্বনিম্ন আধাবিঘা পর্যন্ত দশ থেকে পনের হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হয়ে থাকে।সূদের হার ৮%।

পোল্ট্রী ঋণ : পোল্ট্রী বার্ডস অনুযায়ী ঋণ হয়। এগুলোর ক্ষেত্রে আবার ভাগ রয়েছে যেমন-লেয়ার, ব্রয়লার এবং দেশী মুরগী। এখানে হাউসহোল্ড অনুযায়ী লোন ১০-১৫,০০০/- টাকা। ফার্ম হলে ২০/২৫,০০০-কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা হয়।

ডেইরী ঋণ : ডেইরী ঋণ দুগ্ধ গাভী প্রতি ২৫,০০০/- টাকা, হালচাষ করা গরুর জন্য ২০,০০০/- টাকা এবং মহিষের জন্য ২০,০০০/- টাকা।

 


কৃষি ব্যাংক থেকে কৃষি ঋণ প্রাপ্তির নিয়মাবলী
 
পদক্ষেপ সমূহ  কাজকোথায় যাবেন  কার কাছে যাবেনকি কি কাগজপত্র লাগবে কাজ সম্পুর্ণ হবার সময়সীমা  খরচ (টাকা) গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ
 গ্রাহকের কাজসেবা প্রদানকারীর কাজ  ফি অন্যান্য  খরচ
 প্রথম কাজঋণ গ্রহীতা যে এলাকায় বসবাস করেন সে এলাকায় তার বাড়ী/ প্রকল্প হলে তিনি প্রথমে সে এলাকার কৃষি ব্যাংকে প্রথমে যোগাযোগ করবেনঋণ গ্রহীতাকে কৃষিঋণ উত্তোলনে প্রয়োজনীয় যাবতীয় তথ্য প্রদান করবেনবাড়ী/প্রকল্প কৃষি ব্যাংকের যে ব্রাঞ্চের আওতায়

নিবার্হী অফিসার(ঋণ) 

  ৩০ মিনিট   
 দ্বিতীয় কাজ ব্যাংকের নির্ধারিত ফরম সংগ্রহ ফরম সরবরাহ বাড়ী/প্রকল্প কৃষি ব্যাংকের যে ব্রাঞ্চের আওতায় নির্বাহী অফিসার  শস্য ঋণ ১০,০০০/-টাকার নিম্নে হলে ফরম কেনার ফি লাগবেনা এবং ১০,০০০/- টাকার বেশি হলে ফরমের মূল্র ২০/-এবং শস্য ঋণ ২৫,০০০/-টাকার বেশি হলে আবেদন ফি, প্রতি হাজারে ২ টাকা।
প্রকল্প ঋণের ক্ষেত্রে ফরমের মূল্য ১০০/- টাকা এবং আবেদন ফি প্রতি হাজারে ১০০০ টাকার ১% এর ৮ ভাগের এব ভাগ = .০১২৫ টাকা
 নাই 
 তৃতীয় কাজ ফরম পূরণ    নমুনা    
 চতুর্থ কাজ ফরম জমা  বাড়ী/প্রকল্প এলাকা সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে    নির্বাহী অফিসার (ঋণ)সাধারন কাগজপত্র : সবর্ক্ষেত্রে প্রযোজ্য (স্বল্প পরিমান ঋণের ক্ষেত্রে )
ক) ব্যাংকের নির্ধারিত ফরম পূরণ করে আবেদনকারীর / আবেদনকারীগণের দুই কপি (সত্যায়িত) পাসপোর্ট  সাইজের ফটো
খ)জাতীয়তা সনদ
গ) জমির জামানতের কাগজ, দাগ  খতিয়ান, নামধারী
ঘ) স্থানীয় পৌরসভার হোণ্ডিং ট্যাক্সের কাগজ
ঙ) সরকারী চাকুরীজীবি হলে সংশ্লিষ্ট নিয়োগকারী কর্মকর্তার নিকট থেকে ঋণ গ্রহণে অনাপত্তি সার্টিফিকেট প্রদান

(অধিক/প্রকল্প ঋণের ক্ষেত্রে)

উপরোক্ত সাধারণ কাগজপত্র সহ
চ) স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ/ আয়ের ঘোষনাপত্র
ছ) আয়ের স্বপক্ষে দালিলিক প্রমান।
জ) পৌরসভা/ইউনিয়ন পরিষদে হালসনের কর প্রদানের রশিদ।
ঝ) নিজস্ব বিনিয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থের উত্স্ সম্পর্কে ঘোষনা।
ঞ) প্রকল্প জমির হাতে আঁকা রষ্ট ম্যাপ।
ট) প্রকল্পের সাইট প্ল্যান/লে আউট প্ল্যান
ঠ) প্রজেক্ট প্রোফাইল, কারিগরী ব্যবস্থাপনা, ঋণ গ্রহণের যোগ্যতা প্রতিবেদন, মোট প্রকল্প ব্যয় নির্মান খরচের বিস্তারিত হিসাব, আর্থিক বিশ্লেষন ইত্যাদি।
ড) হাঁস-মুরগীর খামার, দুগ্ধ খামার, মৎস্য খামার, ছাগল পালন এ ধরণের কৃষি ভিত্তিক ছোট প্রকল্পের ক্ষেত্রে পরিবেশ দূষন নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে ছাড়পত্র গ্রহণের পরিবর্তে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ যেমনঃ- পৌর কর্পোরেশন/পৌরসভা/ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃপক্ষের নিকট হতে ছাড়পত্র গ্রহণ সাপেক্ষে ঋণ মঞ্জুর করা যাবে।
ঢ) ইনকাম ট্যাক্স সার্টিফিকেট এছাড়াও জমি বন্ধক রাখা হয়।
ন) ঋণের পরিমান ২৫,০০০ টাকার নিম্নে হলে ১৬ টাকার ১টি রেভিনিউ ন্ট্যাম্প এবং বন্ধকী ঋণের ক্ষেত্রে ২৫ টাকার ডিপি নোট স্ট্যাম্প লাগবে।
ক) শস্য ঋণের ক্ষেত্রে আবেদন গ্রহনের ৩ দিনের মধ্যে ঋণ মঞ্জুর করা হয়।

খ) প্রকল্প বিহীন অন্যান্য ঋণ আবেদন গ্রহনের ৭ দিনের মধ্যে মঞ্জুর করা হয়।

গ) প্রকল্প ঋণ এক থেকে দেড় মাস এর মধ্যে মঞ্জুর হয়।
 অতিরিক্ত কিছু খরচ হতে পারেক) পূরণকৃত আবেদনপত্র এবং সংযুক্তির ফটোকপি অবশ্যই সংগ্রহে রাখুন

খ) আপনার জমাকৃত কাগজপত্রাদির  তথ্যের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আপনার বাড়ী/ প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখতে পারেন।
 পঞ্চম কাজপ্রয়োজনীয় রশিদ এবং কাগজপত্রসহ ব্যাংকে উপস্থিত হয়ে নির্ধারিত স্থানে স্বাক্ষর করে ঋণ উত্তোলনআবেদনকারীর সকল কাগজপত্র পরীক্ষা করে সঠিক প্রমানিত হলে ঋণ প্রদানযে ব্যাংকে ঋণ উত্তোলনের আবেদন ফরম জমা দেয়া হয়েছেনির্বাহী অফিসার (ঋণ)ব্যাংক কর্তৃক আবেদন ফরম জমাদানের রশিদ ৩০-৪০ মিনিট     জমাকৃত সকল কাগজের কপি প্রদর্শন করতে হবে।
 
তথ্যসূত্র : বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, কৃষি মার্কেট শাখা, ঢাকা।
 
শিক্ষক/সরকারী চাকুরীজীবীদের জন্য বিশেষ ক্ষুদ্র ঋণ
(Special Small Credit Scheme)
 
সরকারী চাকুরীজীবীদের আয় সীমিত হওয়ার ফলে তাদের জীবনযাত্রার মান সাধারণ। সীমিত আয়ের এই পেশাজীবীদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করে প্রয়োজনীয় ভোগ্যপন্য ক্রয়ের ক্ষমতা বাড়ানো এবং বিভিন্ন প্রকার আয়বর্ধক বৈধ কার্যক্রমে ঋণ সহায়তার মাধ্যমে তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করার লক্ষ্যে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড নিম্নবর্ণিত বিশেষ ক্ষুদ্র ঋণ কর্মসূচী চালু করেছে:
ঋণ প্রাপ্তির যোগ্যতা:
* বেসরকারী/স্বায়ত্বশাসিত সংস্থা/কর্পোরেশনের কর্মকর্তা/কর্মচারী এবং সরকারী/বেসরকারী (এমপিওভুক্ত কলেজ, মাদ্রাসা ও প্রাথমিক/মাধ্যমিক বিদ্যালয়)-এর শিক্ষকবৃন্দ। আবেদনকারীকে স্থায়ী চাকুরীজীবী হতে হবে এবং এলপিআর-এ যাবার তারিখ পূর্ণ হতে কমপক্ষে তিন বৎসর চাকুরী থাকতে হবে।
* সোনালী ব্যাংক লিমিটেড-এর যে সকল শাখার মাধ্যমে বেতন ভাতা প্রদান করা হয় কেবলমাত্র ঐ সকল শাখা হতে এই বিশেষ ক্ষুদ্র ঋণ সুবিধা পাওয়া যাবে।
ঋণ সীমা:
২০,০০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত।
মার্জিন:
ঋণ সীমার ২০ শতাংশ।
মেয়াদ ও কিস্তি:
মেয়াদ ১২ মাস থেকে ৩৬ মাস পর্যন্ত। মেয়াদের উপর ভিত্তি করে মাসিক কিস্তির টাকা নির্ধারিত হবে।
সুদের হার:
১২ শতাংশ হারে (সরল সুদ) যা পরিবর্তনযোগ্য।
খাতসমূহ:
* পার্সোনাল কম্পিউটার, প্রিন্টার, স্ক্যানার ক্রয়।
* সেলাই মেশিন, সুয়েটার বুনন মেশিন, এমব্রয়ডারী মেশিন ক্রয়।
* ফ্রিজ, ডিপ ফ্রিজ, টেলিভিশন, আসবাবপত্র ও ইলেকট্রিক ফ্যান ক্রয়।
* সাইকেল/মোটরসাইকেল ক্রয়।
* সৌরশক্তি প্লান্ট, বায়োগ্যাস প্লান্ট স্থাপন।
* সবজি বাগান, নার্সারী স্থাপন।
* হাঁস-মুরগী পালন, গাভী পালন, গরু মোটাতাজাকরণ, মৎস চাষ প্রকল্প।
* কৃষি পণ্যের বিপনন।
* বিভিন্ন মৌসুমী ফসল মজুদ।
* শিক্ষার জন্য বিনিয়োগ তথা সন্তানের উচ্চ শিক্ষা বাবদ ব্যয় নির্বাহ।
* ক্ষুদ্র ব্যবসা।
* বিবিধ আয় বর্ধক বৈধ কার্যক্রম।
(সরকারী কর্মকর্তা/কর্মচারীর ক্ষেত্রে ব্যবসা সংশ্লিষ্ট ঋণের খাতসমূহ প্রযোজ্য হবে না।)
ব্যবসা সংশ্লিষ্ট খাতসমূহের পরিশোধ সূচী:
(৬ মাস গ্রেস পিরিয়ড এর ক্ষেত্রে)
ব্যবসা বহির্ভূত খাতসমূহের পরিশোধ সূচী:
ঋণ হিসাব স্থানান্তর:
* সরকারী কর্মকর্তা/কর্মচারী, সরকারী প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের স্থায়ী বদলীর ক্ষেত্রে তাদের বদলীকৃত নতুন অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং বেতন প্রদানকারী ব্যাংক কর্তৃক ঋণের কিস্তি কর্তনের বিষয়ে নিশ্চয়তা গ্রহণ করতে হবে। নিশ্চয়তা গ্রহনের পর যে শাখার মাধ্যমে উক্ত কর্মকর্তা/কর্মচারীর বেতন ভাতা প্রদান করা হবে, সেই শাখায় ঋণ হিসাবটি স্থানান্তর করা যাবে।
ক্ষুদ্র ঋণ কর্মসূচীর ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্যের জন্য সোনালী ব্যাংকের নিকটবর্তী শাখায় যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হলো